প্রজন্মের পৃথিবী
সুমন বিশ্বাস

বনের গাছে ডাকবে পাখি, নিচেয় সবুজ ঘাস,
দেখবে, চিনবে, জানবে নবীন; মিশবে বারোমাস।
থাকবে পুকুর নামবে জলে, রইবে বড়ো মাঠ,
কাটবে সাঁতার চলবে খেলা; বসবে চাঁদের হাট।

বিলে-ঝিলে মাটি-কাদায়, শক্ত হবে হাড়,
খাল-নদীতে নাও ভাসিয়ে— বাইবে লগি-দাঁড়।
আনন্দ আর খুশির গানে, করবে হট্টগোল,
তুলবে দলে শাপলা-পদ্ম; ভরবে ডিঙির খোল।

পাঠশালাতে পড়াশোনায়, রইবে না পাশ, ফেল,
রোল হবে না এক-দুই-তিন; কিংবা ভীতির জেল।
মুখস্ত না, বাস্তব জ্ঞান, ইশকুলে সব পাবে,
ছকবাঁধা নয়, যার যাতে গুণ— সেই সেখানে যাবে।

সবার তরে একটি রবে, নৈতিকতার বই,
শিখবে না দ্বেষ, হিংসা, বিভেদ, ঘৃণা অবশ্যই।
প্রতিযোগী কেউ হবে না, রাখবে ঐকতান,
দশের লাঠি একের বোঝা; মিলবে সমাধান।

আপন ভাষা, সংস্কৃতি, শিল্প, সাহিত্য,
চর্চায় রোজ পক্ব হবে— নতুনের চিত্ত।
প্রকৃতিরে বাসবে ভালো, বাঁচবে সকল প্রাণ,
ফুল-ফসলে পারবে নিতে— মন মাতানো ঘ্রাণ।

প্রজন্মের পৃথিবী যদি, এমনি গড়া যায়,
মানবতার অরুণ কিরণ— লাগবে সদা গায়।

সুমন বিশ্বাস, হিদিয়া, অভয়নগর, যশোর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *