ক্যাচ আউট অথবা ছক্কা

রানা জামান

বিশেষ ব্যবস্থায় চলছে ক্রিকেট খেলা। দশ ওভারের খেলা। শর্ত: যে দল দশ ওভারে তিনশো রান করতে পারবে, সে দল হবে চ্যাম্পিওন। স্কোপ: কোনো দল দশ ওভারে দুইশো সত্তর রান করে সবাই আউট হয়ে গেলে আরো পাঁচ ওভার খেলার সুযোগ পাবে; এ পর্যায়ের শর্ত: অতিরিক্ত এই পাঁচ ওভারে সেই ব্যাটসম্যাস এককভাবে খেলবে যে এক ওভারে বাউন্ডারি(প্রতি বলে ছক্কা অথবা চার) করতে পেরেছে!

টসে জিতে এ-দল শুরু করলো ব্যাটিং। টানটান উত্তেজনা দর্শক বিহীন খেলার মাঠে। সর্বশক্তি প্রয়োগ করে এ-দল দশ ওভারে দুই শ পঞ্চাশ রান করে হয়ে গেলো সবাই আউট।

যান্ত্রিক হাত তালিতে বি-দলকে স্বাগত জানানো হলো মাঠে। বি-দলের লক্ষ্য কমপক্ষে দুই শ সত্তর রান করা। এবার সত্যই টানটান উত্তেজনা ক্রিকেটারদের মাঝে। ফিল্ডিং চলছে খুব কড়া। শত কড়াকড়ির মাঝেও বি-দল করে ফেললো দুই শ সত্তর রান দশ ওভারে। প্রচণ্ড যান্ত্রিক হাততালির সাথে বাজিও ফুটলো খুব। বি-দল চ্যাম্পিওন না হলেও অতিরিক্ত পাঁচ ওভার পাওয়ায় চ্যাম্পিওন হবার সুযোগ পেলো হাতে। সৌভাগ্যক্রমে একজন ব্যাটসম্যান ছয় ওভারে তিনটি ছক্কা ও তিনটি চার মেরে এক্সট্রা পাঁচ ওভারে ব্যাটিং করার যোগ্যতাও করেছে অর্জন।

ক্রিকেটার, দুই দলের ম্যানেজমেন্ট ও আয়োজকদের মাঝে নিজ মাথার চুল টেনে ছেড়ার মতো উত্তেজনা। নতুন নিয়মে ম্যাচের এটাই প্রথম এক্সট্রা পাঁচ ওভার খেলা। এই পাঁচ ওভারে তিন শ রান পুরা করতে পারলে ঐ ক্রিকেটারকে সতের শ স্কয়ার ফুটের একটি ফার্নিস্ড ফ্লাট ও এক কোটি টাকা নগদ পুরস্কার প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে ন্যাশনাল সিস্টেম।

নির্বিকার চেহারা নিয়ে ক্রিকেটার এক্স মাঠে নামতেই বি-দলের আর সব ক্রিকেটার ও ম্যানেজমেন্ট হাততালি দিয়ে দর্শক না থাকার অভাবটা পূরণ করার চেষ্টা করছে।

এক্স দর্শকহীন গ্যালারিগুলোয় ব্যাট উচিয়ে দেখাতে দেখাতে এগিয়ে যাচ্ছে পিচের দিকে। পিচের ব্যাটিং প্রান্তে এসে কয়েকবার উঠবস করে, চারটে উর্ধলাফ দিয়ে ওয়র্মআপ করে নিলো নিজকে। শুরু হলো ফিল্ডারদের বলিং এবং এক্স-এর ব্যাটিং। কোন রান ছাড়াই প্রথম ওভার হলো সমাপ্ত। এ-দল খুশি না হলেও বি-দল হলো বিষন্ন। দ্বিতীয় ওভারে প্রথম বল থেকেই শুরু করলো পিটানো ক্রিকেটার এক্স। ছক্কা হয়ে যাওয়ায় বইতে শুরু করলো যান্ত্রিক করতালির বন্যা। এর পরের বলে চার রান। পরের তিনটি বলে কোন রান না হওয়ায় নিরব ম্যানেজমেন্ট গ্যালারি। তৃতীয় ওভারে শূন্য রান হলে বি-দলের ম্যানেজমেন্টের অনেকের ওয়াশরুমে যাবার প্রয়োজনীয়তা গেলো বেড়ে।

চতুর্থ ওভারে দশ রান হয়ে গেলে ফের প্রাণ ফিরে পেলো বি-দলের ম্যানেজমেন্ট গ্যালারি।
এবার মাইকে ঘোষণা দেয়া হলো যে এটা লাস্ট ওভার; এই ওভারের ছয় বলে দশ রান করতে না পারলে বি-দল চ্যাম্পিওন হবে না এবং ন্যাশনাল সিস্টেম কর্তৃক ঘোষিত পুরস্কারও পাবে না আজকের এই ম্যাচের হট ফেভারিট ক্রিকেটার এক্স।

ঘোষণাটা শুনে এক্স ঘোষণা-গ্যালারির দিকে তাকিয়ে হাতের ব্যাটটা নেড়ে ইতিবাচক ভঙ্গি করলো।
শুরু হলো

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।