২৫ কৃতী শিক্ষার্থী পেলেন সম্মাননা স্মারক
উন্মোচন হলো ‘রূপান্তর’র মোড়ক, আত্মপ্রকাশ ঘটল ‘গোল্ডেন পাবলিকেশন’র

মোহাম্মদ অংকন, ফরিদপুর হতে ফিরে:
‘মানুষ আজকাল টাকার পিছনে ছুটতে গিয়ে মনুষ্যত্ব হারিয়ে ফেলছে। সোনার মানুষ তৈরি হলে, টাকা তোমাদের পিছনে ছুটবে। আর সোনার মানুষ হতে এই “রূপান্তর” গাইডলাইন হিসেবে কাজ করবে। পজেটিভ মনোভাব ও পজেটিভ চিন্তাভাবনা করতে শেখাবে। মনুষ্যত্ববোধকে জাগ্রত করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমাদের এই “রূপান্তর”র সৃষ্টি।’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে কথাগুলো বলেন ফরিদপুরের জনপ্রিয় প্রফেসর রেজভী জামান। বৃহত্তর ফরিদপুরের আত্মোন্নয়নমূলক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘গোল্ডেন স্টুডেন্টস’র ব্যানারে প্রকাশিত সাহিত্য সাময়িকী “রূপান্তর”র সূচনা সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন হয়েছে। গত ২৪ নভেম্বর শুক্রবার বিকেল ২টা ৩০ মিনিটে ফরিদপুর শিশু একাডেমি মিলনায়তনে ‘সোনার মানুষ, সোনার দেশ, সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ’ স্লোগানকে ধারনকৃত চলতি মাসে প্রকাশিত সৃজনশীল সাহিত্য সাময়িকী “রূপান্তর”র মোড়ক উন্মোচনের পাশাপাশি ‘ক্যারিয়ার গাইডলাইন সেমিনার’, ‘কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা’ ও ‘গোল্ডেন পাবলিকেশন’র শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হিসেবে পদকপ্রাপ্ত সরকারি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, মাগুরা’র সম্মানিত অধ্যক্ষ প্রফেসর রেজভী জামান। প্রধান বক্তা ও প্রধান আকর্ষণ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষার্থী-সমাজের অনুপ্রেরণা ও আলোচিত সফল শিক্ষার্থী জনাব মোঃ পিরু মোল্লা, সহকারী মহা হিসাবরক্ষক, বিসিএস (অডিট এন্ড একাউন্টস)। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোল্ডেন স্টুডেন্টস’র উপদেষ্টা ও সরকারি ইয়াসিন কলেজ, ফরিদপুর’র প্রভাষক জনাব এবিএম শাহজাহান মিয়া, ঢাকা হতে আগত কবি ও কথাসাহিত্যিক মোহাম্মদ অংকন, সাহিত্য সাময়িকী “রূপান্তর”র সম্পাদক এস এম নুর ইসলাম এবং সঙ থিয়েটার’র সভাপতি ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি, ফরিদপুর’র প্রশিক্ষক প্রসেনজিৎ পাল।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি জনাব এবিএম শাহজাহান মিয়া শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার সচেনতামূলক সুদীর্ঘ বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি বলেন, ‘গোল্ডেন স্টুডেন্টস মানুষকে সাধারণ থেকে অসাধারণে রূপান্তর করে।’ প্রধান বক্তা জনাব মোঃ পিরু মোল্যা তার সফলতার গল্প সেমিনারে উপস্থিত কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরেন এবং “রূপান্তর” ম্যাগাজিন সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘রূপান্তর একটি বৈপ্লবিক দর্শনের নাম। আপনাদের সোনার মানুষ হতে হলে রূপান্তর পড়তে হবে।’ মোঃ পিরু মোল্যার বক্তব্য শুনে উপস্থিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ মুর্হু-মুহু করতালিতে অভিবাদন জানায়। অনুষ্ঠানের শেষপর্যায়ে তার হাত থেকে ‘রূপান্তর’ ম্যাগজিন তুলে নেওয়ার জন্য ভিড় জমায়। অনেকে সেলফি তুলে স্মৃতি জমিয়ে রাখে প্রিয় হয়ে ওঠা সফল মানুষটার সাথে।

অতিথিদের বক্তব্য প্রদান শেষে ‘কৃতী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা’ হিসেবে এবিএম শাহজাহান মিয়া পরিচালিত বিসিএস একাডেমির কৃতী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়। কৃতী শিক্ষার্থী হিসেবে অতিথিদের নিকট হতে সম্মাননা স্মারক গ্রহণ করেন বোয়ালমারি সরকারি কলেজ, ফরিদপুর’র হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আরিফা গুলশান, ৪০তম বিসিএস ক্যাডারে কৃষি সহকারী পরিচালক (কৃষি বিপণন কর্মকর্তা) হিসেবে সুপারিশ প্রাপ্ত নাঈম আহমেদ, ৪০তম বিসিএস নন-ক্যাডারে ইংরেজি ইন্সট্রাক্টর (টিএসপি) হিসেবে সুপারিশ প্রাপ্ত মোঃ জাকির হোসেন, টেক ইলেকট্রনিক্স ইন্সট্রাক্টর হিসেবে সুপারিশ প্রাপ্ত জাহিদুল হক তমাল, বিসিএস নন-ক্যাডার হিসেবে সুপারিশ প্রাপ্ত ও বর্তমানে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক ওবায়দা ইয়াসমিনসহ মোট ২৫জন কৃতী শিক্ষার্থী।

পুরো অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন এম এ শাকুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ জনাব সুপ্রিয়া দত্ত। সভাপতিত্ব করেন ‘গোল্ডেন স্টুডেন্টস’র সম্মানিত সভাপতি জনাব বিভাষ দাস। সমাপণী বক্তব্যে “রূপান্তর” ম্যাগাজিনের সম্পাদক জনাব এস এম নুর ইসলাম বলেন, ‘গোল্ডেন স্টুডেন্টস বিভিন্ন সৃজনশীল কার্যক্রমের মধ্যদিয়ে লেখক ও সম্পাদক তৈরি করে। এই সংগঠন মানুষকে স্বাপ্নিক মানুষে রূপান্তর করার মাধ্যমে দূরদর্শিতার অনুশীলন করতে শেখায় এবং দেশপ্রেম ও দেশের প্রতি মমত্ববোধ জাগ্রত করে। সুতরাং নিজেকে সমৃদ্ধ করতে হলে, আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হলে, যোগ্যতা, দক্ষতা এবং সক্ষমতা বৃদ্ধি করে দেশের সেবায় নিজেকে আত্মনিয়োগ করতে চাইলে আপনাকেও গোল্ডেন স্টুডেন্ট হতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘রূপান্তরকে যদি আমরা আন্তরিকতার সাথে গ্রহণ করতে পারি, এই রূপান্তরকে যদি আমরা ধারণ করতে পারি, রূপান্তরের নির্যাসটুকু যদি আমরা নিতে পারি, তাহলেই একদিন রূপান্তরিত হবে ‘সোনার মানুষ সোনার দেশ, সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ।’

২টা ৩০ মিনিট থেকে চলতে থাকা অনুষ্ঠানটি শেষ হতে হতে সন্ধ্যা গড়িয়ে আসলেও শিশু একাডেমি মিলনায়তন তখনও কানায় কানায় পরিপূর্ণ ছিল। প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি ও কৃতী শিক্ষার্থীদের বক্তব্য সবাই যেন মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শোনে। অনুষ্ঠানের শেষাংশে ফটোসেশন পর্বে অংশগ্রহণ করেন অতিথি, কৃতী শিক্ষার্থী ও সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীগণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *